অনশনে থেকে নিজের প্রেমকে প্রতিষ্ঠা করা খুব একটা সহজ ব্যাপার নয়, তবুও ভালবাসার জন্য কত কিছুই না মানুষ করে ।
তেমনি এক ঘটনার সাক্ষী হলো ভারতের বাঁকুড়ার বিষ্ণুপুরের বাসিন্দারা । দীর্ঘ নয় বছরের সম্পর্কের সফল এক পরিনিতি টানতে চান প্রেমিক, কিন্তু অল্প শিক্ষিত হওয়ায় পরিবারের চাপে বিয়ে করতে রাজি নয় প্রেমিকা, আর সেইজন্যই বাড়ির সামনে অনশনে বসেছেন ঐ তরুণ।


ভারতীয় সংবাদমাধ্যম সূত্রে জানা যায়, বিষ্ণুপুরের কুরবান তলার বাসিন্দা রকি রজক মঙ্গলবার দুপুর থেকে \’প্রেমিকা\’ তনুশ্রী ঘোষের শহরের কাটানধারের বাড়ির দরজার সামনে \’আমার নয় বছর ফিরিয়ে দাও\’ দাবি সম্বলিত প্ল্যাকার্ডসহ দু\’জনের বেশ কিছু ছবি নিয়ে অনশনে বসেছেন।



\’প্রেমিক\’ রকি রজকের দাবি, স্কুলে পড়াশুনার করার সময় থেকে তনুশ্রী ঘোষের সঙ্গে তার সম্পর্ক। হঠাৎ বাবা মারা যাওয়ায় মাঝপথে পড়াশুনা ছাড়তে বাধ্য হয়। বর্তমানে ব্যবসা করে সংসার চালান।

এদিকে, দীর্ঘ নয় বছরের সম্পর্কের পর প্রেমিকা তনুশ্রী ঘোষ তাকে বিয়ে করতে অস্বীকার করছেন। গত ২ অক্টোবর তাদের মধ্যে শেষ কথা হয়েছে। এরপর বাড়ির লোকের কথায় কম পড়াশুনা জানা ছেলেকে বিয়ে করতে চায় না বলে স্পষ্টই জানিয়েছেন। যতোক্ষণ না পর্যন্ত প্রেমিকা তাকে বিয়ে করতে রাজি হচ্ছে ততোক্ষণ পর্যন্ত অনশন চালিয়ে যাবেন বলে জানিয়েছেন।

\’প্রেমিক\’ রকি রজকের বন্ধু সুমন্ত দাস রজকও দাবি করেন, দু\’জনের মধ্যে গত ন\’বছর ধরে সম্পর্ক রয়েছে। দু\’জন দু\’জনের বাড়িতে নিয়মিত যাতায়াত করতেন। এরপর তনুশ্রী ঘোষ তাকে বিয়ে করতে রাজি না হওয়ায় তিনি এই কাণ্ড ঘটিয়েছেন।

তবে তনুশ্রী ঘোষের মা মালতী ঘোষের দবি, ওই তরুণ সম্পূর্ণ মিথ্যা কথা বলছেন। তার মেয়েকে রকি রজক প্রায়ই বিরক্ত করতেন। বিষয়টি নিয়ে তাকে সতর্ক করা হয়েছিল।

দু\’জনের একসঙ্গে ছবি প্রসঙ্গে বলেন, এখন এই সব ছবি তৈরি করা যায়, সবাই সেটা ভালো করেই জানেন। মেয়ের বদনাম করতে ওই তরুণ মিথ্যা কথা বলছেন বলেও তার দাবি।







এর আগেও প্রায় একই রকম কান্ড ঘটিয়েছিল পশ্চিমবঙ্গের অন্তত বরুন নামের এক যুবক, আট বছরের সম্পর্কের পরে প্রেমিকা লিপিকা সম্পর্ক ছিন্ন করতে চাইল অনশনে বসেছিলেন অন্তত, অবশ্য সে যাত্রায় অন্ততের সেই অনশনের শুভ পরিনিতি ঘটেছিল বিয়ের মাধ্যমে,একবার দেখার বিষয় রকির ভাগ্যে কি ঘটে, অনশনের মাধ্যমে প্রেমিকার মন গলাতে পারবেন কিনা তিনি।

News Page Below Ad