বাংলাদেশে বর্তমানে করোনা ভাইরাসের দাপট বেড়ে গিয়েছে। শুধু বাংলাদেশে নয় বরং সারা বিশ্বে এই ভাইরাসের দাপট বেড়ে চলেছে।বাংলাদেশে এই ভাইরাসের সংক্রমন মোকাবেলায় সরকার গত বছর দেখা গিয়েছিল সাধারন ছুটি ঘোষনা করেছিল এবং এই ছুটি কয়েক দফা বাড়ানো হয়েছিল এবং এর পর লকডাউন দেওয়া হয়েছিল।গত বছরের ন্যয় এই বছর ও তেমনটি দেওয়া হয়েছে।

সারা দেশে স্বাস্থ্যবিধি মেনে বাসসহ গণপরিবহন চালুর দাবি উঠলেও দূর পাল্লার বাস ছাড়ার সময় এখনও আসেনি। তবে রাজধানীর ভেতরে গণপরিবহন চালু হতে পারে বলে মনে করছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। আজ সোমবার (৩ মে) মহাখালীর ডিএনসিসি ডেডিকেটেড কোভিড-১৯ হাসপাতালে দুটি অ্যাম্বুলেন্স এবং একটি লাশবাহী গাড়ি হস্তান্তর অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক আবুল বাশার মোহাম্মদ খুরশিদ আলম।
তিনি বলেন, রাজধানীর মধ্যে গণপরিবহন চলতে পারে। কিন্তু জেলা থেকে জেলায় গণপরিবহন চলার মত পরিস্থিতি তৈরি হয়নি। স্বাস্থ্যবিশেষজ্ঞদের সুপারিশে দেশে লকডাউন চলছে। এপ্রিল মাসে করোনা সংক্রমণ ও মৃত্যু বেশি থাকলেও এখন কিছুটা কমে আসছে। করোনা নিয়ন্ত্রণে আরও কিছুদিন গণপরিবহণ চলাচল বন্ধ রাখতে হবে।
এর আগে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ মোকাবিলায় সরকার জনসমাগম এড়াতে প্রথমে ৫ থেকে ১১ এপ্রিল পর্যন্ত কঠোর বিধিনিষেধ আরোপ করে। পরে এ নিষেধাজ্ঞা আরওি বাড়িয়ে ১৩ এপ্রিল পর্যন্ত করা হয়। তবে সে সময় সরকারি-বেসরকারি অফিস, শিল্পকারখানা, গণপরিবহন চালু ছিল। এরপর সরকার ১৪ এপ্রিল থেকে সর্বাত্মক লকডাউনে যায়, যাতে বন্ধ ছিল গণপরিবহন এবং দোকানপাট। সরকারের সর্বশেষ নির্দেশ অনুযায়ী, আগামী ৫ মে পর্যন্ত গণপরিবন বন্ধ থাকছে।
সুপারিশগুলোর মধ্যে অন্যতম হলো- স্বাস্থ্যবিধি না মানলে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে দোকানপাট বন্ধ করে দেওয়া হবে, কর্মহীন পরিবহন শ্রমিকদের প্রণোদনা নিশ্চিতকরণের বিষয়ে গুরুত্ব দেওয়া, মাস্কের ব্যবহার শতভাগ নিশ্চিত করতে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনার মাধ্যমে জেল-জরিমানা, গার্মেন্টসহ সব কলকারখানার কর্মচারীদের ছুটি বাতিল করে নিজ নিজ কর্মস্থলে অবস্থান নিশ্চিতকরণ ও সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের ঈদের ছুটিতে কর্মস্থলে অবস্থান নিশ্চিত করা।


বর্তমানে করোনা ভাইরাসের সংক্রমন মোকাবেলায় সরকার লকডাউনের আওতায় নিয়ে এসেছেন। সারা দেশে চলমান গনপরিবহন এবং অভ্যান্তরিন ফ্লাইট চলাচল এবং আন্তযার্তিক রুটে বিমান চলাচল বন্ধ করে দেওয়া হয়। বর্তমানে এই সংক্রমনের মাত্রা বেড়ে চলেছে অতি মাত্রায় এবং আওনেকেই এই ভাইরাসের কবলে পড়ছে মানুষ

News Page Below Ad