বাংলাদেশি মোবাইল ফোনের গ্রাহক বেড়েছে প্রচুর সেই সাথে এই ফোনের চাহিদাও বাড়ছে দিনকে দিন মানুষ প্রতিনিয়ত স্মার্টফোন গুলোর দিকে ঝুঁকছেন যারা অতীতে এনালগ ফোনগুলো ব্যবহার করেছেন তারাও এখন প্রযুক্তির সুরে মেতে উঠেছেন এবং এই স্মার্টফোনগুলোর দিকে ঝুঁকছেন সাধ্যের মধ্যে বিভিন্ন দামের স্মার্টফোন গুলো বেছে নিচ্ছেন তারা তবে এই স্মার্টফোনগুলো কিভাবে কোন জায়গা থেকে এসেছে এবং সেগুলো আদৌ বৈধ কিনা সেগুলো অনেকেই জানেন না এবং এই স্মার্টফোনগুলোর নিবন্ধন বিটিআরসি থেকে আছে কিনা সেগুলো জানা নেই অনেকের যার ফলে ভোগান্তিতে পড়ার সম্ভাবনা রয়েছে যারা এ বিষয়ে না জানেন

আমরা নানা রকমের মোবাইল ফোন ব্যবহার করে থাকি। তবে কোন ফোনটা আসল বা বিটিআরসি নিবন্ধিত তা হয়ত আমরা কখনও যাচাই করে নেই না। ফলে বিটিআরসি নিবন্ধিত না হওয়ায় যে কোন সময় ফোনটি বাতিল হয়ে যেতে পারে। তাই জেনে নিন বিটিআরসি নিবন্ধিত কিনা আপনার ফোনটি।
মোবাইল সেট কেনার সময় মেসেজ অপশনে গিয়ে KYD লিখে স্পেস দিয়ে ১৫ ডিজিটের আইএমইআই নম্বর দিয়ে ১৬০০২ তে পাঠাতে হবে। ফিরতি বার্তায় ফোনটির আইএমইআই বিটিআরসি সার্ভারে নিবন্ধিত আছে কিনা জানিয়ে দেয়া হবে।
মোবাইল ফোনের বক্সে বা প্যাকেটে প্রিন্টেড স্টিকার থেকে অথবা ফোনে *#০৬# ডায়াল করে তাৎক্ষণিকভাবে সংশ্লিষ্ট হ্যান্ডসেটের আইএমইআই জানা যায়। বৈধ মোবাইল ফোন হ্যান্ডসেট ক্রয়ে এ পদ্ধতি অনুসরণ করতে হবে।


সারাবিশ্বে ঘটছে প্রযুক্তিগত উন্নয়ন বিশ্বের বিভিন্ন দেশের মতো বাংলাদেশেও এর ছোঁয়া পড়েছে এবং প্রতিনিয়ত বাংলাদেশ স্মার্টফোন গ্রাহকের সংখ্যা বেড়ে চলেছে এবং মানুষ তাদের সাধ্যমত চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে ভালো স্মার্টফোনগুলো লুফে নেওয়ার জন্য কিন্তু অনেক ক্ষেত্রেই এসবের স্মার্টফোনগুলো বিভিন্নভাবে অবৈধ পথে আসছে যেগুলো বিটিআরসির নিবন্ধিত নয় এর ফলে এগুলো সাময়িকভাবে এখন চললেও পরবর্তীতে বন্ধ হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে

News Page Below Ad