দেশের অন্যতম জনপ্রিয় একজন কলামিস্ট পীর হাবিবুর রহমান বাংলাদেশ প্রতিদিনের নির্বাহী সম্পাদক। দেশের বিভিন্ন সমসাময়িক ঘটনা নিয়ে তিনি বলিষ্ঠ কণ্ঠস্বর এবং বিভিন্ন দুর্নীতি এবং অনিয়মের বিরুদ্ধে লেখেন তিনি তাঁর লেখা ব্যাপক জনপ্রিয় প্রতিটি লেখায় দুর্নীতি এবং ঘুষখোর যারা রয়েছেন সমাজে এবং প্রয়োজনীয়তা সমাজের ক্ষতি করে যাচ্ছেন তাদের বিষয়ে তিনি লিখে থাকেন এবং সেইসাথে সমাজে যারা ভালো কাজ করেন তাদের নিয়েই কথা বলে থাকেন।

বর্ষীয়ান রাজনীতিবিদ মরহুম মিজানুর রহমান চৌধুরী বলেছিলেন, আত্মীয়তা হলো শবযাত্রায় আর বরযাত্রায় অর্থাৎ বিয়ের সময় স্বজনকে সবাই খোঁজ নিয়ে জড়ো করেন আর মৃত্যুতে সবাই শেষ বিদায়ে সমবেত হন।

জীবনের পুরোটা সময় কাটে আত্মার বাঁধনে বাঁধা অগণিত মানুষের সঙ্গে আর দেশের বরেণ্য রাজনীতিবিদদের সঙ্গে। আমার ইতিহাসের প্রতি দায়বদ্ধতার পাশাপাশি ব্যক্তিগত সম্পর্কের নৈকট্য বা আত্মার বাঁধন অনেক মজবুত ভিত্তির ওপর দাঁড়িয়েছে আছে। সাংবাদিকতার জীবনকে আমি পেশাগত ইবাদতের জায়গা থেকে মানুষের কল্যাণে অসীম সাহসিকতায় উঁচু জায়গায়ই নির্ধারণ করেছি।

জাতীয় ও আন্তর্জাতিক রাজনীতির প্রেক্ষাপটে গণতন্ত্রের প্রাতিষ্ঠানিক দুর্বলতাসহ নানা সামাজিক সরলীকরণে আমি সাধারণ মানুষের সঙ্গে মানুষ হিসেবে সেই সাহসিকতায় স্পার্টাকাসের মতো হয়তো বারবার জ্বলে উঠতে পারিনি কিন্তু স্রোতের বিপরীতে সাঁতার কেটে আসা ফিনিক্স পাখির মতো আগুনে পুড়ে জন্ম নিয়েছি। নোয়াম চমস্কি থেকে একালের অরুন্ধতী রায়ের মতো সাহস দেখাতে না পারি কিন্তু জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শের সন্তান হিসেবে সব দেশোদ্রোহী, দুর্নীতিবাজ, লুটেরা, অর্থ পাচারকারী, ঘুষখোর এবং সমাজ রাজনীতির ও প্রশাসনের নষ্ট অংশের প্রতি নিরন্তর আঘাত করতে ভুলিনি। সমাজের মুখোশ পরিহিতদের চেহারা উন্মোচনে নিরলস কাজ করেছি।

আমি এমন কোনো অপরাধ করিনি যে হৃদয়ে তিনটি রিংয়ে শোভাবর্ধন বাড়াতে হবে, কর্ক্রট রোগে আক্রান্ত হতে হবে। আমি মানুষের সঙ্গে প্রতারণা করিনি, যতটা করেছি নিজের সঙ্গেই। অভিমানে হোক, দ্রোহে হোক, আপসহীনতায় হোক আর জেদেই হোক- নিজের প্রতি অবিচারের ফল সুদে আসলে দিয়ে মাশুল গুনছি আজ।

আমি কেবল দুর্নীতিপরায়ণ ও নষ্ট সমাজের কুৎসিত কদর্য কাহিনিই লিখিনি, আমাদের জাতীয় জীবনের বীরদের ইতিহাস নির্মাণের বীরত্বের গৌরব লিখে তৃপ্তির ঢেঁকুর তুলেছি।

হ্যাঁ, দেশ-বিদেশের শত সহস্র নরনারী গভীর ভালোবাসায় পরম করুণাময়ের কাছে আমার কেবল আরোগ্য লাভই চাইছেন না- নিয়ত আমার লেখার প্রত্যাশা করছেন।

মানসিক শক্তি না হারালেও কেমোর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ায় আমি আমার শারীরিক সমস্ত শক্তি হারিয়ে ফেলেছি। যারা আমার দৌড়ঝাঁপের দাপুটে জীবন দেখেছেন তারা এখন হিসাব মেলাতে পারবেন না।

আমার প্রাণবন্ত লেখক জীবনের সুসময় উপভোগ করা একজন কাছের মানুষ অভিশাপের সুরেই বললেন, আমার বাকি জীবন নাকি কেমোর যন্ত্রণাতেই কাটবে। বিশ্বাসঘাতকতার বীভৎস চিত্র নিয়ে আমি আর কখনই লিখব না। তবে আমি আমার চিকিৎসক ডাক্তার সুরেশ আদভানিকে বলেছিলাম, লেখা ছাড়া আমার আর কোনো ঐশ্বর্য নেই। এই শক্তি হারালে আমার প্রাণশক্তি শেষ হয়ে যাবে। তিনি আমাকে বলেছেন, চার মাস পর আপনি নতুন উদ্যমে লেখার ভুবনে ফিরে যাবেন। সুরেশ আদভানিকে ভারতে অনকোলজির ভগবান বলা হয়। আমি তাঁকে বলেছি, আমার আল্লাহর প্রতি সম্পূর্ণ বিশ্বাসের পর আপনার দরজায় এসেছি।

তিনি বলেছেন, ক্যান্সার পরাজিত হবে, আপনি জয়ী হবেন। ৭৮ বছরের এই ডাক্তার হুইল চেয়ারে চলাফেরা করেন, হাসপাতালে এসে কোনো রোগী দেখেন না। তাঁর বিশেষ পছন্দের মানুষদের তাঁর বাড়িতে সাক্ষাতের সুযোগ দেন। শনিবার ডাক্তার সুরেশ আদভানি তাঁর বাসায় আমাকে সব রিপোর্ট, কাগজপত্রসহ ডেকেছেন। ডাক্তার সুরেশ আদভানির প্রিয় ছাত্র ডাক্তার শিবমের আন্তরিকতা আমার লেখায় দেওয়া সম্ভব নয়। দিনরাত তাঁকে যখন ডেকেছি কাছে পেয়েছি। আর ছোট ভাই সুনামগঞ্জ জেলা যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক আসাদুজ্জামান সেন্টু দিনরাত আমাকে যে সেবা দিয়ে যাচ্ছে, তা আপন ভাইও ভাইয়ের জন্য করে না। আমার জন্য দোয়া করবেন যেন আমি যুদ্ধে জয়ী হতে পারি।

বাংলাদেশ প্রতিদিন এর নির্বাহী সম্পাদক পীর হাবিবুর রহমান। তিনি বিভিন্ন সময় তার বিভিন্ন কলামে দেশের নানান বিষয় নিয়ে কথা বলে থাকেন যেগুলো ব্যাপক জনপ্রিয়তা পায় এবং দেশের মধ্যে ঘটে যাওয়া ইতিবাচক ঘটনাগুলো তিনি আলোচনা করেন তাঁর এই কলমের মধ্যে এবং যারা ইতিবাচক কাজ করছে তাদের তিনি বাহবা দিয়ে থাকেন এবং সমাজে যারা নেতিবাচক কাজ করছে সর্বদা তাদেরকে তিনি তিরস্কার করে থাকেন

News Page Below Ad