বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক এবং স্থানীয় সরকার ও জনপ্রশাসন মন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের দ্বিতীয় মৃত্যুবার্ষিকী আজ ২০১৯ সালে তিনি এ দিনটিতে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেছিলেন ব্যাংককের একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ছিলেন এবং সেখানেই তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন রাজনীতি পরায়ন এই মানুষটির না ফেরার দেশে চলে যাওয়াতে রাজনৈতিক অঙ্গনে নেমে এসেছে শোকের ছায়া


ছবিটা আজ সকালের। বনানী কবরস্থানে সাংবাদিকদের অপেক্ষা। আওয়ামী লীগের বড় কোনো নেতা হয়তো সৈয়দ আশরাফ ভাইকে শ্রদ্ধা জানাতে যাবেন; এই ভেবে উনারা অনেকক্ষণ অপেক্ষা করেছিলেন।

না, কেউ যান নি। কারও সময় হয় নি। জীবিত সৈয়দ আশরাফের চেয়ে মৃত সৈয়দ আশরাফ আরও বেশি শক্তিশালী! লাখো কর্মীর আবেগ ’সৈয়দ আশরাফ’।

অনুভূতির আওয়ামী লীগের কর্মীরা তাদের স্বল্পভাষী, ডেডিকেটেড এবং প্রজ্ঞাবান আশরাফ ভাইকে মননে মগজে ধারণ করে। সেই নাম মোছার সাধ্যি কারো নেই।

দু’বছর আগে না ফেরার দেশে চলে গিয়েছিলেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক স্থানীয় সরকার ও জনপ্রশাসন মন্ত্রী সৈয়দ আশরাফ। তার চলে যাওয়াতে রাজনৈতিক অঙ্গনে বড় ক্ষতি হয় গেছে অভিজ্ঞ একজন রাজনীতিবিদ হারায় দেশ। সৈয়দ আশরাফের বাবা ছিলেন জাতীয় চার নেতার মধ্যে একজন

News Page Below Ad