দীর্ঘদিন করোনাভাইরাস নিয়ে রাজধানীর শ্যামলী স্পেশালাইজড হাসপাতালে চিকিৎসাধীন থেকে অবশেষে না ফেরার দেশে চলে গেলেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য এবং সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম। যদিও তিনি মারা যাওয়ার আগে তার করোনাভাইরাস নেগেটিভ এসেছিল তবুও তার শেষ রক্ষা হলো না। দীর্ঘদিন ধরে তাকে আইসিইউতে রাখা হয় এবং তিনি এক প্রকার কোমায় চলে গিয়েছিলেন কোন কিছুতেই তার রেসপন্স ছিল না তার অবস্থার অবনতি দেখে চিকিৎসকরা মেডিকেল বোর্ড গঠন করেন এবং সে অনুযায়ী তার চিকিৎসা করা হয় তবুও কোন উন্নতি হয়নি এবং অবশেষে তিনি চলে গেলেন না ফেরার দেশে। নাসিমের চলে যাওয়ার পর রাজনৈতিক অঙ্গনে নেমেছে শোকের ছায়া।



বাংলাদেশে যে নিপীড়নের মহামারী চলছে তার অন্যতম হাতিয়ার হচ্ছে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন। এই আইন তৈরি করা হয়েছে এমনভাবে যাতে করে সরকার এবং রাষ্ট্র মানুষের মুখ বন্ধ করে দেবার কাজটি আউটসোর্স করতে পারেন তাদের অনুগত বাহিনীর হাতে। ২০১৮ সালে এই আইন চালু হবার পর থেকে তাই ঘটছে। যে যাই বলুক তাকে শায়েস্তা করার জন্যে ব্যবহৃত হচ্ছে এই নিপীড়ক আইন।

তার সাম্প্রতিক উদাহরণ হচ্ছে বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের (বেরোবি) বাংলা বিভাগের অধ্যাপক সিরাজুম মুনিরা’র বিরুদ্ধে আনীত মামলা এবং তাকে আটক করা। কিছু দিন আগে এই মামলায় সাংবাদিক এবং কার্টুনিস্টসহ ১১ জনকে অভিযুক্ত করা হয়েছে, তাদের মধ্যে চার জন জেলে আটক আছেন, তাদের জামিনের শুনানী হচ্ছে না। প্রতিদিন কোথাও না কোথাও কেউ না কেউ আটক হচ্ছেন - ফেসবুকে মন্তব্য করা এক অপরাধে পরিণত হয়েছে। ক্ষমতাসীনদের অপছন্দ হলেই তার জন্যে নেমে আসছে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের খড়্গ।

অধ্যাপক সিরাজুম মুনিরার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছেন বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগ সভাপতি তুষার কিবরিয়া; তিনি নগরীর তাজহাট মেট্রোপলিটন থানায় এ মামলা দায়ের করেন (ইত্তেফাক ১৪ জুন ২০২০)। ক্ষমতাসীন দলের ছাত্র সংগঠনের এই অভিযোগের সঙ্গে সুর মিলিয়ে একই থানায় বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার কর্নেল (অবঃ) আবু হেনা মোস্তফা কামাল মামলা করেছেন (টিবিএস, ১৪ জুন ২০২০)। একটি বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্তৃপক্ষ একজন শিক্ষকের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করার দায়িত্ব নিয়েছে। এই হচ্ছে বিশ্ববিদ্যালয়; বিশ্ববিদ্যালয়ের কন্ঠস্বর এখন ছাত্রলীগের শাখা সভাপতির চেয়ে ভিন্ন হয়না।
নিপীড়নের হাতিয়ার হবার জন্যে তাদের মধ্যে এক প্রতিযোগিতার সূচনা হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগ সভাপতি তুষার কিবরিয়া বলেন, আমার দায়ের করা মামলায় সিরাজুম মুনিরাকে গ্রেফতার করা হয়েছে, কিন্তু গ্রেফতারের ৩০ মিনিট পর বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের লোকজন এসে প্রশাসনের মামলায় গ্রেফতার দেখানোর চেষ্টা করছে।

মাঝে মাঝে সারা বিশ্বের বিশ্ববিদ্যালয়ের র‍্যাঙ্কিংয়ে বাংলাদেশের কোন বিশ্ববিদ্যালয় আছে বা নেই তা নিয়ে যারা খুব উদ্বেগের মধ্যে থাকেন তারা নিশ্চিত হতে পারেন যে, শিক্ষকদের মতপ্রকাশের অধিকার খর্ব করার কাজে বিশ্ববিদ্যালয়ের অগ্রণী ভূমিকার যদি তালিকা হয় তবে সেই তালিকায় এই ধরণের বিশ্ববিদ্যালয় অনেক ওপরেই থাকবে। জানি এই দাবিতে সরকার কর্ণপাত করবে না তবু বলবো – এই নিপীড়ক আইন বাতিল চাই, মতপ্রকাশের কারণে এই আইনের আওতায় যাদের আটক করা হয়েছে তাদের অবিলম্বে মুক্তি চাই।



সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম এর ইন্তেকালের পর আওয়ামী লীগের সকল নেতাকর্মীরা শোক প্রকাশ করেছেন একরকম শোকাবহ দিন পার করেছে দেশের সকল রাজনীতিবিদরা তবে এরই মধ্যে ঘটেছে কিছু অন্যরকম ঘটনা মোহাম্মদ নাসিম ইন্তেকালের পর তাকে নিয়ে বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের অধ্যাপক সিরাজুম মুনিরা একটি ব্যঙ্গাত্মক স্ট্যাটাস দেন ফেসবুকে এরপর থেকেই চতুর্দিক থেকে সমালোচনা শুরু হয় এবং এক পর্যায়ে তার বিরুদ্ধে ডিজিটাল আইনে মামলা করা হয়

News Page Below Ad