রাজধানীর গুলশানের একটি ফ্ল্যটে কলেজ পড়ুয়া এক মেয়ের নিথর দেহ উদ্ধার হয়েছে গত সোমবার। এরপর থেকেই এই ঘটনায় সবখানে ছড়িয়ে পড়েছে নানা ধরনের আলোচনা সমালোচনা। বিশে করে এই ঘটনার সাথে জড়িত রয়েছে বসুন্ধরা গ্রুপের এমডি তানভীর। তাই এ নিয়ে যেমন আলোচনা সমালোচনা হচ্ছে তেমনি দেখা দিচ্ছে নানা ধরনের শঙ্কাও। সম্প্রতি এ সব নিয়ে একটি বিশেষ লেখনি লিখেছেন দেশের বিশিষ্ট ব্যক্তিত্ব জনাব আসিফ নজরুল। পাঠকদের উদ্দেশ্যে তার সেই লেখনি তুলে ধরা হলো হুবহু:-
আনভীরের কি হবে? একটি অনুমান।
(আনভীর বসুন্ধরা গ্রুপের এমডি। আত্নহত্যার প্ররোচনার মামলা হয়েছে তার বিরুদ্ধে)
আনভীর বিদেশে চলে যাবে। এজন্য কাউকে শাস্তি পেতে হবে না।
সে কখনো বাই চান্স গ্রেফতার হলেও খুব অল্প সময়ের মধ্যে জামিন পাবে। তার কোন রিমান্ড হবে না।
তার পরিবারের সদস্যদের (যাদের নাম অভিযোগপত্রে আছে) বিষয়ে পত্রিকায় কিছু লেখা হবে না।
সোস্যাল মিডিয়ায় ভিকটিম মেয়েটি ও তার পরিবার কতো খারাপ এনিয়ে একদল মানুষ লেখা শুরু করবে।
মিডিয়ায় বসুন্ধরার বিজ্ঞাপন বাড়বে।
কালোটাকার লেনদেন বাড়বে। দু’একজনের কোটি কোটি টাকার বাণিজ্য হবে।
মামলায় ফাইনাল রিপোর্ট হবে (বা বাতিল হবে)। না হলে ঝুলে থাকবে। সাক্ষী বা প্রমান পাওয়া যাবে না।
আমরা সব ভুলে যাবো।
আবারো আনভীরের হাসিমাখা মুখের ছবি সর্বোচ্চ্ ক্ষমতাধরদের সাথে দেখা যাবে।
আনভীর আরো কোন বড় অপরাধ করার কনফিডেন্স পাবে।
একদল আবারো বলবে বিকল্প কি!
(বার্তা: আনভীর বিরোধী দল বা ভিন্নমতালম্বী না, রামপাল বিরোধী না, সীমান্ত হত্যার প্রতিবাদী না। সে উপযুক্ত জায়গায় দানশীল ডীপ স্টেট। কাজেই সে নির্দোষ।)

এ দিকে তানভীরকে ইতমধ্যে দেশ ত্যাগে নিষেধাজ্ঞা প্রদান করেছে আদালত। এবং সেই সাথে তার বিরুদ্ধে চালানো হচ্ছে তদন্তও। জানা গেছে তার স্ত্রী পাড়ি জমিয়েছেন বিদেশে। কিন্তু তিনি এখনো আছেন দেশের মধ্যে।





News Page Below Ad