করোনার ভয়াল ছোবলে সারা বিশ্ব আতঙ্কিত। প্রাণঘাতী নভেল করোনা এখন সারা বিশ্বে বিরাজমান। এই রোগে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা এবং প্রাণনাশের সংখ্যা দিনে দিনে বেড়েই চলছে বিভিন্ন দেশে। করোনাভাইরাসে প্রাণ হারিয়েছে প্রবাসী তিন বাংলাদেশি। কূটনৈতিক সূত্রগুলো বলছে, প্রবাসে কত জন বাংলাদেশি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে তা বলা কঠিন। কারন কেউ করোনা আক্রান্ত হলে তাকে ওই দেশের নাগরিক বলে চালিয়ে দেওয়া হয়।

নভেল করোনাভাইরাস (কভিড-১৯) সংক্রমণে যুক্তরাষ্ট্রের নিউ ইয়র্কে দুই বাংলাদেশি এবং ইতালির মিলানে এক বাংলাদেশির মৃত্যু হয়েছে। তাঁরা সেই শহরগুলোর বাসিন্দা ছিলেন।

নিউ ইয়র্কপ্রবাসী বাংলাদেশিদের মাধ্যমে জানা গেছে, নিউ ইয়র্ক সময় গত বৃহস্পতিবার রাতে নিউ ইয়র্কের কুইন্স সিটি বরোর দুজন বাংলাদেশি মারা গেছেন। তাঁদের একজনের বয়স ষাটের কোঠায়। অ্যাস্টোরিয়ার ওই বাসিন্দার গুরুতর হৃদেরাগ ছিল। তিনি করোনাভাইরাস শনাক্ত হওয়ার পর কুইন্স হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন।

করোনাভাইরাসে মারা যাওয়া নিউ ইয়র্কের অন্য বাংলাদেশির বয়স ৫০ বছর। তিনি উডসাইড এলাকায় থাকতেন।

জানা গেছে, নিউ ইয়র্কে বাংলাদেশি সম্প্রদায়ের মধ্যে করোনাভাইরাস আতঙ্ক দেখা দিয়েছে। সেখানে বাংলাদেশি সম্প্রদায়ের বেশির ভাগ যুক্তরাষ্ট্রেরও নাগরিক বা স্থায়ী বাসিন্দা। নিউ ইয়র্কে অন্তত ২১ বাংলাদেশি করোনাভাইরাসে সংক্রমিত হয়েছে বলে বিভিন্ন সূত্রে জানা যায়। এদিকে করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের কারণে নিউ ইয়র্কের রাজ্য সরকারের নির্দেশনা অনুযায়ী নিউ ইয়র্কে বাংলাদেশ কনস্যুলেট জেনারেলের সব কার্যক্রম পরবর্তী নির্দেশনা না দেওয়া পর্যন্ত স্থগিত থাকবে।

এদিকে ইতালিতে করোনাভাইরাসে এই প্রথম একজন প্রবাসী বাংলাদেশির মৃত্যু হয়েছে। ইতালিপ্রবাসী বাংলাদেশিরা জানিয়েছে, মৃত্যু হওয়া ব্যক্তি ইতালির মিলানের বিজুত্তেরিয়ার বাসিন্দা। গত শুক্রবার রাতে তাঁর মৃত্যু হয়। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৫০ বছর। তিনি প্রায় দুই সপ্তাহ ধরে চিকিৎসাধীন ছিলেন। বাংলাদেশে তাঁর বাড়ি নোয়াখালী। তাঁর পুরো পরিবার ইতালির বাসিন্দা।

প্রবাসী বাংলাদেশিদের অনেকেই দ্বৈত নাগরিক। কেউ আক্রান্ত হলে স্থানীয়ভাবে তাদের ওই দেশের নাগরিক হিসেবেই দেখানো হয়। আবার অনেক ক্ষেত্রেই আক্রান্তরা তাদের পরিচয় জানাতে চায় না। এর আগে সিঙ্গাপুর, সংযুক্ত আরব আমিরাত, সৌদি আরব, স্পেন, ইতালি ও ব্রুনেই দারুসসালামে করোনাভাইরাসে আক্রান্তদের মধ্যে বাংলাদেশি বা বাংলাদেশি বংশোদ্ভূতদের থাকার তথ্য পাওয়া গেছে। এ ছাড়া বিদেশফেরতদের মাধ্যমে এ দেশের বাসিন্দাদের মধ্যে করোনাভাইরাস সংক্রমণ ঘটেছে।


প্রসঙ্গত, বর্তমানে করোনা ভাইরাস মহামারী আকার ধারণ করে চীন ছাড়িয়ে বিশ্বের বিভিন্ন দেশেও দ্রুত ছড়িয়ে পড়ছে। চীনের উহান শহর থেকে এ মহামারী করোনার আবির্ভাব ঘটেছে। বর্তমানে এ ভাইরাস বিশ্বের ১৮৬ টা দেশে ছড়িয়ে পড়েছে। সারা বিশ্ব এখন ঝুকির মুখে করোনার ফলে। ইতিমধ্যে বাংলাদেশে করোনা আক্রান্ত হয়েছে ২৪ জন। করোনার ফলে প্রাণ হারিয়েছে ২ জন।

News Page Below Ad