কথায় আছে ’যার দেখতে নেই তার চলন বাঁকা’, সেইরকম এক ঘটনার সাক্ষী হলো ভারতের উত্তরপ্রদেশের আদালত চত্বর, যৌতুক ও নির্যাতনের দায়ে স্বামীকে যখন আদালতে হাজির করেছে স্ত্রী, তখন স্বামীই কিনা তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে আদালতে বসেই স্ত্রীকে তালাক দিলেন।

ভারতের উত্তরপ্রদেশের লখনউয়ে এক চুইংগামের জন্য আদালত চত্বরেই স্ত্রীকে তিন তালাক দিলেন স্বামী। আদলত প্রাঙ্গণে এমন কাণ্ডে তুমুল উত্তেজনার সৃষ্টি হয়।

সোমবার উত্তর প্রদেশের লখনউয়ে চুইংগাম খেতে না চাওয়ায় স্ত্রী সিম্মিকে তিন তালাক দেন সৈয়দ রশিদ।
২০০৪ সালে রশিদের সঙ্গে পারিবারিক সম্মতিতে বিয়ে হয় সিম্মির।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম জানায়, উত্তরপ্রেদেশের অমরাই গ্রামের বাসিন্দা সিম্মি আদালতে স্বামীর বিরুদ্ধে যৌতুক দাবির মামলা করেছেন। স্বামী রশিদের বিরুদ্ধে সেই মামলার শুনানির জন্য আদালতে এসেছিলেন তিনি।

স্বামীর বিরুদ্ধে যৌতুক দাবির পাশাপাশি শারীরিক নির্যাতনের অভিযোগ করেছিলেন সিম্মি নামের ওই নারী। মামলার শুনানির সময় স্ত্রীকে একটি চুইংগাম দিতে যান স্বামী রশিদ। কিন্তু সেই চুইংগাম নিতে রাজি হননি স্ত্রী।

আর এতেই রাগের বশে স্ত্রীকে তিন তালাক দিয়ে দেন স্বামী। এ ঘটনা ঘিরে আদালত চত্বরে শুরু হয় তুমুল উত্তেজনা। পরে মুহূর্তে রশিদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের হয়।

একদিকে যৌতুক দাবির মামলা অন্যদিকে স্ত্রীকে আইন বিরুদ্ধ তিন তালাক দেয়ায় ফের তার বিরুদ্ধে এই নতুন মামলা দায়ের করা হয়।