রাজীবের পর এবার গোপালগঞ্জে বেপরোয়া গাড়িতে শরীর থেকে হাত বিচ্ছিন্ন হল এক মোটর শ্রমিকের। মঙ্গলবার দুপুরে সদর উপজেলার বেদগ্রামে ঢাকা-খুলনা মহাসড়কে এ ঘটনা ঘটে।
আহত ওই মোটর শ্রমিকের নাম হৃদয় শেখ (২৬)। সে টুঙ্গীপাড়া উপজেলার পাটগাতী গ্রামের রবিউল শেখের ছেলে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়া থেকে হৃদয় শেখ টুঙ্গীপাড়া এক্সপ্রেসের পেছনের ডান পাশের সিটে বসে ঢাকা আসছিলেন। এসময় বাসটি সদর উপজেলার বেদগ্রাম নামক স্থানে পৌছলে বিপরীতমুখী একটি ট্রাক অপর একটি ইজিবাইককে ওভারটেক করতে গিয়ে টুঙ্গীপাড়া এক্সপ্রেসের পিছনের অংশে সজোরে আঘাত করে।

এতে বাস যাত্রী হৃদয় শেখের ডান হাতটি বাসের জানালার বাইরে থাকায় শরীর থেকে একেবারে বিচ্ছিন্ন হয়ে সড়কের ওপর পড়ে যায়।

পরে খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের একটি দল ঘটনাস্থলে গিয়ে আহত হৃদয় শেখকে উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য গোপালগঞ্জ জেনালের হাসপাতালে নিয়ে যায়।

টুঙ্গীপাড়া এক্সপ্রেসের যাত্রী ও ঢাকার ইডেন কলেজের অনার্স শেষ বর্ষের ছাত্রী রাহিমা মনি জানান, বিপরীত দিক থেকে আসা ট্রাকটি বেপরোয়াভাবে ইজিবাইকটিকে ওভারটেক করতে গিয়ে পরিবহন বাসটির পেছনে লাগিয়ে দেয়।

জেনারেল হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক ডা. উর্মি হক জানান, আহত মোটর শ্রমিক হৃদয় শেখের ডান হাতটি শরীর থেকে একেবারে বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। তাকে প্রাথমিকভাবে প্রয়োজনীয় চিকিৎসা দেয়া হয়। তবে তার অবস্থার অবনতি ঘটায় তাকে ঢাকা পঙ্গু হাসপাতালে রেফার করা হয়।

গোপালগঞ্জ সদর থানার ওসি মনিরুল ইসলাম ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, বাগেরহাটের ফকিরহাট এলাকা থেকে ট্রাকটি আটক করা হয়েছে।

প্রসঙ্গত, গত ৩ এপ্রিল বিআরটিসির একটি দোতলা বাসে দাঁড়িয়ে যাচ্ছিলেন রাজধানীর মহাখালীর সরকারি তিতুমীর কলেজের স্নাতক দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র রাজীব হোসেন। তার ডান হাত বাসের সামান্য বাইরে ছিল। ওই সময় হঠাৎই পেছন থেকে স্বজন পরিবহনের একটি বাস বিআরটিসির বাসের গা ঘেঁষে ওভারটেক করার সময় রাজীবের ডান হাত শরীর থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়।

পথচারীদের সহায়তায় তাকে প্রথমে শমরিতা হাসপাতাল ও পরে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হয়। সোমবার দিবাগত রাত ১২টা ৪০ মিনিটে আইসিইউর চিকিৎসক রাজীবকে মৃত ঘোষণা করেন।