পরকীয়া আমাদের দেশের সামাজিক ব্যাধিতে পরিণত হয়েছে প্রতিনিয়ত দেশের কোথাও না কোথাও দেখা যাচ্ছে এই প্রক্রিয়ার প্রভাবে নানান ঘটনা ঘটছে এবং মানুষ এক রকম এই ঘটনাগুলো সাথে জড়িয়ে যাচ্ছে প্রতিনিয়ত। পরকীয়ার প্রভাবে ধ্বংস হচ্ছে হাজারো সংসার এবং নানান ভাবে সমাজে নানা ধরনের ঘটনা ঘটছে এই প্রক্রিয়ার প্রভাবে

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগর পৌর সভার সোহাতা গ্রামের নূর মোহাম্মদ মিয়ার দুবাই প্রবাসী ছেলে মনির হোসেনের স্ত্রী তিন সন্তানের জননী মনিরা আক্তার বন্যা নগদ টাকা পয়সা ও স্বর্ণালংকার নিয়ে প্রে’মিকের সাথে পা’লিয়ে গেছে। সরেজমিন ও মামলা সূত্রে জানা যায়, উপজেলার কনিকাড়া সরকার বাড়ির সহিদ সরকারের ছোট মেয়ে মনিরা আক্তার বন্যার সাথে নবীনগর পৌরসভার সোহাতা গ্রামের নূর মোহাম্মদ মিয়ার দুবাই প্রবাসী ছেলে মনির হোসেনের সাথে বিগত ২২/০১/২০১৪ সালে ইসলামি শরীয়া মো’তাবেক বিবাহ হয়। বিবাহিত দম্পতির তাবাসসুম নামক ৫ বছরের কন্যা সন্তান এবং তাসকিন ও তাসফিয়া নামক সাড়ে ৩ বছরের জমজ পুত্র সন্তান রয়েছে।



জীবিকার তাগিদে স্বামী মনির হোসেন দুবাই প্রবাসে চলে গিয়ে স্ত্রী সন্তানের উজ্জ্বল ভবিষ্যতের কথা চিন্তা করে উপজেলা সদরের কলেজ পা’ড়ায় জায়গা ক্রয় করে একটি দ্বিতল ভবন নির্মাণ করেন। স্বামী প্রবাসে থাকার সুবাদে মনিরা আক্তার বন্যা তার পিত্রালয় কনিকাড়া অবস্থান করিয়া পাশের বাড়ির মালদ্বীপ ফেরত মনিরুল হকের ছেলে আশানূরের সাথে প’রকী’য়া সম্প’র্কে জ’ড়িয়ে পড়েন।



পর’কী’য়ার জেরে অ’বৈধ সম্প’র্ক গড়ে উঠলে শুক্রবার (২৮মে) রাত ১১টায় তারা আপ’ত্তি’কর অবস্থা’য় গ্রামবাসীর হাতে ধ’রা পড়েন। এবিষয়ে( ৩০শে মে) গ্রাম্য বিচার শালিস হবে মর্মে স্থানীয় গন্যমান্য ব্যক্তিদের জিম্মায় আশানূরকে ছেড়ে দেয়া হয়।কিন্তু বিচারকার্য হওয়ার আগের দিন(২৯মে) তারা রাতের আঁ’ধারে বাড়ি থেকে পা’লিয়ে যায়।



পরিবারের লোকজন অনেক খোঁজাখুঁজি করে না পেয়ে নবীনগর থানায় অ’প’হর’ণ মাম’লা দা’য়ের করতে চাইলে ঘটনার বর্ণনা শুনে থানা প্রশাসন সঠিক পরামর্শ দিয়ে প্র’কৃত অ’পরা’ধের ধা’রা অনুযায়ী মাম’লার করার কথা বলেন। এতে মনিরা আক্তারের পিতা সহিদ সরকার বাদী হয়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়া বিজ্ঞ সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আ’দালতে নিজের মেয়েসহ ৪ জন ও অ’জ্ঞা’তনামা আরো ৪/৫ জনকে আসামি করে একটি সি আর মাম’লা দা’য়ের করেন। তবে তিন সন্তানের জননী মনিরা আক্তার বন্যা নিজেই স্বীকার করলেন তার প’রকী’য়ার কথা।



তবে কথা কিন্ত রয়ে গেলো? কি দো’ষ ছিল তার তিনটি অবুঝ শিশুর? কি দোষ ছিল দুবাইপ্রবাসী স্বামী মনির হোসেনের এ বিষয়ে দুবাই প্রবাসী স্বামী মনির হোসেনের আ’র্তনা’দ ছিলো আমার স্ত্রী ভুল করলেও সন্তানদের জন্য আমি তাকে মেনে নিব। এরপরও যেন আমার সন্তান গুলো এতিম না হয়।

প্রতিনিয়ত পরকীয়ার ঘটনা ঘটছে দেশের কোথাও না কোথাও বিশেষ করে প্রবাসী যারা রয়েছেন তাদের সংসারে ধরনের ঘটনার প্রবণতা বেশি ঘটছে তবে শুধুমাত্র প্রবাসী নয় বরং অধিকাংশ পরিবারের এই পরকীয়ার ঘটনা ঘটে চলেছে।

News Page Below Ad